২রা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ শুক্রবার, ১৭ অগাস্ট ২০১৮, ০৯:০৮ পূর্বাহ্ন

টেলিভিশনে মুভি প্রমোশনালের প্রভাব ।। আবদুল্লাহ আল রাকিব।।

টেলিভিশনে মুভি প্রমোশনালের প্রভাব
।। আবদুল্লাহ আল রাকিব।।

যেটা আমি বিশ্বাস করি, দেশা, গেইম কিংবা এই ধাঁচের মুভি গুলো যে গুলো অলরেডি রিলিজ হয়েছে, সে মুভি গুলো যতটুকু ব্যবসা করেছে, তার চেয়ে কয়েকগুণ বেশি ব্যবসা করতে পারত। শুধুমাত্র মুভি গুলো যদি সব শ্রেণির দর্শকদের আরো কাছাকাছি পৌছাতে পারত।
পৌছাতে না পারার কারণ আর কিছু না। কারণ হল টিভি প্রমো। আমাদের মুভির ক্ষেত্রে যেটা হয়, দেখা যায় মুভির প্রোমোশন এর জন্য শুধু সিনেমা হল গুলোর আশে পাশের এলাকাতে কিছু পোস্টার লাগানো হয় ওই সিনেমার। আর পোস্টারগুলোতেও নতুনত্ব খুব কম ই চোখে পড়ে। এক গাদা কাস্টদের সবাইকে আলাদা আলাদা ভাবে পোস্টারে দেখাতে গিয়ে এক ধরনের খিচুড়ি ধরনের পোস্টার লাগানো হয়। কিছু কিছু পোস্টারের দিকে তাকাতেও লজ্জা লাগে। এমন যখন অবস্থা, তাহলে ওই খিচুড়ি মার্কা পোস্টার দেখে কয়টা সিনেমা সচেতন মানুষ যাবে ওই সিনেমা দেখতে।
এটা না হয় বাদ দিলাম। আমাদের দেশে এখনো এমন হয় নি যে প্রত্যেক পাড়া মহল্লায় একটি করে প্রেক্ষাগৃহ আছে। তো খুব স্বাভাবিক ভাবেই কোন মুভি কখন আসে যায় অতি সাধারণ মানুষ গুলো তা জানতেও পারে না। কিন্তু কোন বলিউড মুভি কবে মুক্তি পাবে এটা সে ঠিকই জানে। এর কারণ হল টিভি প্রমোশনাল। আমদের দেশের মুভির ক্ষেত্রে টিভি প্রমোশনাল বলতে কিছুই নাই। কিন্তু টেলিভিশন চ্যানেল ৩ ডজনের মত। তাদেরও যেমন আমদের মুভি র প্রমো নিয়ে কোনো মাথা ব্যথা নেই, তেমনি এক পোস্টার লাগিয়েই স্বস্তির সাথে ঘরে বসে বসে যাবর কাটতে থাকেন মুভি সংশ্লিষ্ট মানুষগুলো। বাকি দৌড় ঝাপ আবার শুরু হয় মুভি রিলিজের পর।
যার ফলে কোন মুভি কবে আসে যায় কেউ টেরও পায় না।
এবার আসি দেশা আর গেইম মুভি দুটির প্রসঙ্গে। দুইটা মুভি এক সপ্তাহের ব্যবধানে মুক্তি পায়। কিন্তু আমি দেশা দেখেছি কারণ আমি নিজ উদ্যোগে “ইউ টিউবে” দেশা’র ট্রেইলর দেখেছিলাম আর ট্রেইলর দেখার পর দেশা মুভিটি দেখার ইচ্ছা জাগে। কিন্তু কেন যেন নিজ উদ্যোগে “গেইম” মুভির ট্রেইলর দেখি নাই। তাই এই মুভি দেখার ইচ্ছাও জাগে নাই। যার রেজাল্ট, এখনো মুভিটি হলে গিয়ে না দেখা।
আমার এতো বড় লেখার পিছনে একটা বিষয় খুবই স্পষ্ট এবং তা হল মুভি বানানোর পর আপনার মুভি যেন সব শ্রেণির মানুষ দেখতে আগ্রহী হয় এর জন্য ব্যবস্থা আপনাদেরই নিতে হবে। সেটা টিভি প্রমোর মাধ্যমেই হোক আর অন্য যে ভাবেই হোক। ইউটিউব কিংবা ফেসবুকে আপনার মুভির প্রমো পোস্ট করতে পারেন। তবে এটা মনে রাখবেন, যারা ফেসবুক বা ইউ টিউব ব্যবহার করেন তারা আপনার মুভির ট্রেইলরের দিকে ভ্রুক্ষেপও করবে না।
আর এতটুকু বলতে পারি, “ছুঁয়ে দিলে মন”, “ইউ টার্ন “, “জিরো ডিগ্রী ” কিংবা “পরবাসিনী” এই মুভি গুলো যদি শুধু প্রমোর মাধ্যমেও দর্শকদের মধ্যে আগ্রহের সৃষ্টি করতে পারে তবে এদের নতুন মাইলফলক হবে তৈরি শুধুমাত্র সময়ের ব্যাপার।
পুনশ্চ : আমার বাসায় নেপালের একটি টিভি চ্যানেল দেখা যায়। নাম “ক্রান্তিপুর টিভি”। আমি মাঝে মাঝে ওই চ্যানেল দেখি। প্রতি অনুষ্ঠান শেষ হবার পর কিছু সময় বরাদ্দ থাকে ওই চ্যানেলের নেপালের সিনেমার প্রমোশনালের জন্য।

Logo


© ২০১২ সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

BTL Ltd

ফোনঃ ৯৫৭১৬২৫

সম্পাদক:
যোগাযোগ: ৫১/৫১ এ রিসোর্সফুল পল্টন সিটি (১০ম তলা), ঢাকা
ই-মেইলঃ news@somoy24.com,
toprealnews24@gmail.com

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি