চ্যানেল বাড়ছে,বাড়ছে নাটক। কিন্তু বাড়ছে না নাটকের মান। ফলাফল যা হবার তা হচ্ছে। দর্শক নাটক দেখছেন না। হাতের রিমোট টিপে চলে যাচ্ছেন পার্শ্ববর্তী দেশের চ্যানেল গুলোতে। তাদের নাটকের মান যা ই হোক না কেনো,কিসের যেন অদৃশ্য চুম্বক তাদের এমনভাবে আটকে রাখে যে তারা এক সেকেন্ডের জন্য সেখান থেকে চোখ ফেরাতে পারে না বা চান না। বিষয়টা এমন,শোবার ঘরে আগুন লাগলেও তারা ড্রয়িং রুম থেকে একচুল পরিমাণ নড়বেন না।
 
একটু খেয়াল করলে দেখা যাবে পার্শ্ববর্তী দেশের নাটক/সিরিয়ালের প্রধান দর্শক কিন্তু আমাদের পরিবারের সদস্য। পরিবারের সদস্যরা চান সারাদিনের কাজ শেষে সন্ধ্যার অবসরের সময়টাতে পারিবারিক গল্প নির্ভর,বিরক্ত বিহীন নাটক/সিরিয়াল দেখতে আর বিনোদিত হতে। পার্শ্ববর্তী দেশের নাটক/সিরিয়াল থেকে তারা কিন্তু সেই বিনোদনটুকু পাচ্ছে। এখন যদি আমাদের দেশের নির্মিত নাটকগুলো যদি পরিবারের বিনোদন দিতে ব্যর্থ হয় তাহলে তারা অন্য কোথাও থেকে বিনোদন নিতে পারে,এটা দোষের কিছু না।
 
অপ্রিয় হলেও সত্য এক ঈদ ছাড়া তেমন কোন ভালো মানের নাটক চ্যানেল গুলোতে প্রচারিত হচ্ছে না। বস্তা পচা কাহিনী,উৎকট প্রেম নির্ভর নাটক লবিং এর মাধ্যমে চ্যানেল গুলোতে অনায়াসে প্রচার হচ্ছে। ভালো কোন নির্মাতা চ্যানেল গুলোতে নাটক বিক্রি করতে গেলে এজেন্ট,লবিং এর ঝক্কি ঝামেলার কারণে ভালো কিছু নির্মাণের আগ্রহ হারাচ্ছেন। তলানিতে গিয়ে ঠেকছে তাদের আত্মবিশ্বাস। ঈদে যাও কিছু ভালো মানের নাটক চ্যানেল গুলোতে প্রচার হতে দেখা যায় তাও আবার হাতে গোনা। তবে সেই হাতে গোনা নাটক গুলোও মানুষ দেখছেন না। অতিমাত্রায় বিজ্ঞাপন আর সঠিক সময়ে নাটক প্রচারিত না হওয়াতে দেশীয় নাটকের উপর মানুষের যেনো এক রকম ঘৃণা ধরে গেছে।
 
তাছাড়া আমাদের এখানে পারিবারিক গল্প নির্ভর তেমন কোন নাটক নির্মাণ হয় না বললেই চলে। যারা নাটক নির্মাণ করছেন তারা বেশীরভাগই প্রেম নির্ভর (যেমন: বকুল তলার প্রেম,চাইনিজের প্রেম, ফাজলামি,ভিটামিন টাইপ মাল মশলা,অমুক জংশন ইত্যাদি ইত্যাদি।) কাহিনীকে প্রাধান্য দিচ্ছেন। তাদের টার্গেট মূলত তরুণ সমাজ। অথচ তারা এটা ভুলে গেছেন আমাদের বাবা-মা,চাচা-চাচী প্রমুখরাও নাটকের বড় দর্শক। অয়োময়,এইসব দিনরাত্রি সহ কালজয়ী নাটকের সাক্ষী তো তারাই। আর তাইতো তারা সেইসব নাটকের কাহিনী আজো বলতে পারেন। অথচ এখনের নাটক আজ দেখলে কাল ভুলে যেতে হয়। মনে রাখার মতো কোন উপাদান থাকে না।
 
এভাবে চলতে থাকলে দেশের ভেতরেরই বাজার হারাবে দেশের নাটক। তাই দেশের নাটকে থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয়া দর্শকদের আবার ফিরিয়ে আনতে হবে। ভালো নাটক নির্মাণ করে আমাদের দর্শকদের বিশ্বাস করাতে হবে যে,এ দেশেও এখন ভালো মানের নাটক নির্মাণ হচ্ছে। লবিং,এজেন্ট,মধ্য স্বত্বভোগীদের বিষ দাঁত ভেঙে দিয়ে সুস্থ ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে হবে। সেই সাথে চ্যানেল মালিকের অতি মুনাফা লোভী দৃষ্টিভঙ্গি বদলাতে হবে।
 
বিঃদ্রঃ নাটক সম্পর্কে আমার খুবই সীমিত জ্ঞান। সেকারণে ভুল করে অযাচিত কিছু লিখে ফেলতে পারি। আশাকরি ভুলগুলো ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।

Leave a Reply

  • (not be published)